• নরসিংদী
  • শনিবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ২৮ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

Advertise your products here

Advertise your products here

নরসিংদী  শনিবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ;   ২৮ মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
website logo

১০ পয়েন্ট হাতছাড়া হওয়ায় হতাশ তামিম


জাগো নরসিংদী 24 ; প্রকাশিত: সোমবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৫২ পিএম
১০ পয়েন্ট হাতছাড়া হওয়ায় হতাশ তামিম
তামিম

বাসস : তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে আফগানিস্তানের কাছে ৭ উইকেটে হারের কারণে হতাশ  বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল। কেননা  আইসিসি ওয়ানডে বিশ^কাপের সুপার লিগে মূল্যবান ১০টি  পয়েন্ট হারাতে হয়েছে  টাইগারদের।

শেষ ওয়ানডেতে হারের কারনে আফগানিস্তানকে প্রথমবারের মতো হোয়াইটওয়াশের সুযোগ হাতছাড়া হয় বাংলাদেশের। তবে সিরিজে হোয়ইটওয়াশের চেয়ে ১০ পয়েন্ট না পাবার আক্ষেপে পুড়ছেন তামিম। যা শুধুমাত্র পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থানকে শক্তিশালী করতো না বরং ভারতে ২০২৩ সালের বিশ্বকাপ নিশ্চিত করার পথে অনেক ধাপ এগিয়ে রাখতো।

সামনের  সিরিজগুলো বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত কঠিন হবে। তাই এই ১০ পয়েন্ট তামিমের কাছে অন্য যেকোনো কিছুর চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল। যদিও বাংলাদেশ বর্তমানে ১০০ পয়েন্ট নিয়ে আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের টেবিলের শীর্ষে রয়েছে।

আজ ম্যাচ শেষে তামিম বলেন, ‘এই পরাজয়ে  আমি খুবই হতাশ।’ তিনি আর বলেন, ‘ওয়ানডে চ্যাম্পিয়নশিপের সময় আমরা শ্রীলংকার বিপক্ষে একই অবস্থায় ছিলাম এবং ভালোভাবে শেষ করতে পারিনি। আবারও এমনটা ঘটেছে. আমরা ভাল শুরু করেছিলাম এবং মাঝপথে ছন্দ হারিয়ে ফেললাম।’
শেষ ওয়ানডেতে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। তামিমকে হারানোর পরও লিটন দাস এবং সাকিব আল হাসান দলকে বড় স্কোরের পথেই রেখেছিলেন। সাকিব আউট হবার জোড়া আঘাত হানেন আফগানিস্তানের স্পিনার রশিদ খান। টাইগারদের মিডল-অর্ডারে মুশফিকুর রহিম এবং ইয়াসির আলিকে আউট করেন তিনি। এরপর ব্যাটিং ধস নামে বাংলাদেশের। ৩৯ রানে লিটনসহ শেষ ৬ উইকেট হারায় তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৬ রান করেন লিটন।

তামিম বলেন, ‘লিটন  ভুল সময়ে আউট হয়েছে। আমি এটিকে সিরিজের সবচেয়ে গুরুত্ব¡পূর্ণ খেলা হিসেবে মনে করেছিলাম, কারণ এখানে যতটা সম্ভব পয়েন্ট অর্জনের বিষয় জড়িত। আমরা এক উইকেটে ১০০ রান করেছি, কঠোর পরিশ্র করেছি, কিন্তু উইকেট ভালো হলে উইকেট হারাতে হবে।’

এরপর আফগান ওপেনার রহমানুউল্লাহ গুরবাজের ১১০ বলে অপরাজিত ১০৬ রানের সুবাদে জয় পায় আফগানিস্তান। তার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ৫৯ বল বাকি রেখে জয় তুলে নিয়ে হোয়াইটওয়াশ এড়ায় আফগানরা। 

তবে তিনবার জীবন পেয়ে ইনিংসটি সাজান গুরবাজ। বাংলাদেশের ফিল্ডারদের ব্যর্থতায় ৬০, ৬১ এবং ৬৩ রানে তিনবার জীবন পান তিনি। মুশফিকুর রহিম দু’বার এবং মাহমুদুল্লাহ একবার ক্যাচ মিস করেন। তিনবারই দুর্ভাগা  বোলার ছিলেন শরিফুল ইসলাম।

তামিম বলেন, গুরবাজকে আউট করতে পারলে, ম্যাচের পরিস্থিতি অন্যরকম হতে পারতো।
তিনি বলেন, ‘আমরা যদি অন্তত একবার ক্যাচ মিস না করতাম। তাহলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতে পারতো। কিন্তু ক্রিকেট খেলায় এমন হতেই পারে। গুরবাজ সত্যিই চমৎকার ইনিংস খেলেছেন। আমাদের কাছ থেকে ম্যাচ বের করে নিয়েছেন তিনি ।’

খেলা বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ